শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০

তুরস্ক কাশ্মীরে যুদ্ধের জন্যে সিরিয়ান যোদ্ধা পাঠানোর খবর গুজব



তুরস্ক কাশ্মীরে যুদ্ধের জন্যে সিরিয়ান যোদ্ধা পাঠাচ্ছে বা তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান সিরিয়ান যোদ্ধাদের কাশ্মীরে পাঠানো শুরু করেছে। খবরটা গুজব।

তবে এই রকম খবর শুনতেও ভালো লাগে।এই প্রপাগান্ডা পাকিস্তানীরা চালাতে পারে। এবং এতে অবশ্যই দাদা বাবুদের ধুতি ভিজে যাওয়ার কথা।

এর আগে একটা খবর চাউড় হয়েছিল, তুরস্ক পাকিস্তানকে যুদ্ধের জন্যে এট্যাক ড্রোন সাপ্লাই দেওয়া শুরু করেছে।

এটাও ভারতের জন্যে কাপড় ভিজে যাওয়ার মত খবর।বিশেষ করে আজারবাইজান যুদ্ধে আর্মেনিয়রা যে পরিমাণ মাইর খেয়েছে তুর্কী ড্রোন দিয়ে, এতে বড় চিন্তারই বিষয় ভারতের জন্যে। 

ভারত কারাবাখ যুদ্ধে সরাসরি সমর্থন দিয়েছে আর্মেনিয়াকে। তাদের মিডিয়া থেকে সোশাল এক্টিভিস্টরা সবাই সমর্থন দিয়েছিল।

পাকিস্তানে তুরস্কের ড্রোন বা সিরিয়ান যোদ্ধা, দুইটাই এখন পর্যন্ত আসে নি। তবে পাকিস্তানে তুরস্কের ড্রোন আসবে এটা নিশ্চিত। এবং তুরস্ক ফুল সাপোর্ট দিবে এটাই নিশ্চিত।

ড্রোন এবং টেকনোলজি সম্পুর্ন পাওয়ার পরে যখন যুদ্ধ লাগবে,  তখন জানা জাবে তুরস্কের ড্রোন এসেছে। এর আগে কেউ জানবে না।

মানে ভারতীরা মাইর খাওয়ার আগে টের পাবে না,তবে ওদের মনে মধ্যে ভয় ঢুকে গিয়েছে। 

এই ভয় নিয়েই থাকুক। সীমান্তে ঝামেলা কম করবে ভারত।  আগামী ৩-৪ মাসের সীমান্তে সংঘাত এনালাইসিস করলেই ঘটনা বোঝা যাবে।
বিষয় করে ফাস্ট ফায়ার ভারতের সেনারা কতটা কেইসে করছে।

দেখে যাক। আর ড্রোনের ভয়েই থাকুক দাদা বাবুরা।

আজারবাইজান যুদ্ধে, তুরস্ক ও পাকিস্তান যেভাবে আজারবাইজান ভাইদের পাশে দাঁড়িয়েছে, ভারতের ভয়ের একটাই সবচেয়ে বড় কারণ। মুসলিমরা তাদের নির্যাতিত ভাইদের পাশে দাঁড়ানো শিখতেছে নতুন করে।আগামীতে আরো বেশি দাঁড়াবে।ইন শা আল্লাহ।

® হাসান আকন্দ
-সামরিক বিশ্লেষক 

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: